স্বাস্থ্য সুরক্ষায় খেজুর

বাস্থ্য সুরক্ষায় খেজুর একটি উপকারী ফল। প্রতিদিন খেজুর খাওয়ার মাধ্যমে আপনি স্বাস্থ্যের বিবিধ উপকার পেতে পারেন। শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় ভিটামিন, মিনারেলসহ বিভিন্ন উপকরণ খেজুরের মধ্যে রয়েছে। এছাড়া এতে আরো রয়েছে ফাইবার, যা শরীরের ভেতরের বিষাক্ত পদার্থ সহজে নিষ্কাশনের ক্ষেত্রে সাহায্য করে। সংক্ষেপে খেজুরের কিছু উপকারিতা দেখে নেওয়া যাক।

  • পরিপাকতন্ত্রের সুস্থতায় খেজুর একটি উপকারী খাদ্য। পরিপাকতন্ত্রের বিভিন্ন সমস্যায় খেজুর উপকার করে। কোলন ক্যান্সারের মত বিভিন্ন রোগের ঝুঁকি কমাতে খেজুর সাহায্য করে।
  • রক্তচাপ হ্রাসের ক্ষেত্রে খেজুর সাহায্য করে থাকে। ৬ থেকে ৮টি খেজুরে গড়ে ৮০ মিলিগ্রাম ম্যাগনেসিয়াম থাকে। চিকিৎসকদের মতে, কেউ যদি প্রতিদিন ৩৭০ মিলিগ্রাম ম্যাগনেসিয়াম গ্রহন করে, তবে তার রক্তচাপ স্থির হয়ে আসবে।
  • ডায়রিয়া নিরাময়েও খেজুরের উপকারিতা বিদ্যমান। খেজুরে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম। ডায়রিয়া নিরাময়ের ক্ষেত্রে ক্যালসিয়াম প্রয়োজনীয় একটি উপাদান।
  • স্ট্রোকের ঝুঁকি কমাতেও খেজুর সাহায্য করে। খেজুরের মধ্যে থাকা পটাশিয়াম স্নায়ুতন্ত্রকে স্বাভাবিকীকরণে সাহায্য করে। পটাশিয়াম মানুষের স্ট্রোকের ঝুঁকি ৪০ শতাংশ পর্যন্ত কমাতে পারে।
  • যদি আপনার ওজন অতিরিক্ত কম হয়, তবে আপনি প্রতিদিন খেজুর খেতে পারেন। এটি আপনার ওজন বৃদ্ধিতে সাহায্য করবে।
  • রক্তশূণ্যতায়ও খেজুর সাহায্য করতে পারে। খেজুরে প্রচুর পরিমাণে আয়রন রয়েছে। যা রক্তশূণ্যতা দূর করতে সাহায্য করে।
  • খেজুরের মধ্যে ফসফসরাসের পরিমাণও অধিক। ফসফরাস মস্তিষ্কের ক্ষমতা বৃদ্ধির ক্ষেত্রে উপকারী। খেজুর খাওয়ার মাধ্যমে মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতা বৃদ্ধির সুযোগ রয়েছে।
  • শারীরিক শক্তি বৃদ্ধিতেও খেজুরের উপকারিতা বিদ্যমান। খেজুরে থাকা বিভিন্ন পুষ্টি উপাদান যথা ফ্রুক্টোজ, গ্লুকোজ ইত্যাদি শারীরিক শক্তি বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।

Sharing is caring!

(Visited 1 times, 1 visits today)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *